এরশাদ ড. কামাল ও বি. চৌধুরী মইনকে রাষ্ট্রপতি হতে উসকানি দিয়েছিলেন : শাহ মোয়াজ্জেম

smডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে গতকাল আশির দশকের ছাত্রনেতাদের আয়োজিত ‘গণতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ ও বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়
বিএনপি নেতা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেছেন, সাবেক সেনাপ্রধান মইন ইউ আহমেদকে রাষ্ট্রপতি হয়ে ক্ষমতা দখলে উসকানি দিয়েছিলেন এরশাদ, ড. কামাল হোসেন ও বি. চৌধুরী। জাতীয় সরকারের অংশ হওয়ার জন্যই তারা এ কাজটি করেছিলেন। এখন তাদেরও খবর হওয়া উচিত।
গতকাল বিকেলে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে আশির দশকের ছাত্রনেতৃবৃন্দ, ঢাকা মহানগর আয়োজিত ‘গণতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ ও বর্তমান পরিস্খিতি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।
ঢাকা মহানগরীর আহ্বায়ক আলী আকবর চুন্নুর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি’র সহসভাপতি এম কে আনোয়ার।
শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক উল্লেখ করে এম কে আনোয়ার বলেন, হাইকোর্টের রায় দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করা যাবে না। এটা দেশের জন্য মঙ্গলজনকও হবে না। তিনি বলেন, সরকার দেশের স্বার্থের চেয়ে বিদেশীদের স্বার্থ রক্ষায়ই বেশি ব্যস্ত রয়েছে। এ কারণেই টিপাইমুখ বাঁধ এবং এশিয়ান হাইওয়ের নামে ভারতকে করিডর দেয়ার কথা চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। পাওয়া না পাওয়ার হিসাব না কষে সব ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় তিনি জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তোলার আহ্বান জানান।
প্রধান বক্তা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন আরো বলেন, ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যের কারণে ভারতেরই উচিত এ দেশ থেকে পিনাক রঞ্জনকে সরিয়ে নেয়া। আর পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপু মনিরও চলে যাওয়া উচিত।
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মারুফ কামাল সোহেল, এস এম কামালউদ্দিন, শাহজাহান সম্রাট, ফেরদৌস আহমেদ খোকন, সারোয়ার আজম খান, আমিরুল ইসলাম আলীম প্রমুখ।