স্বরলিপি সন্ধ্যা

moniটো কি ও
১৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে স্বরলিপি কালচারাল একাডেমিÑ জাপান গত ৩ মে রবিবার টোকিওর আকাবানে কাইকানে স্বরলিপি সন্ধ্যা নামে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। প্রধান অতিথি ছিলেন টোকিওর বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ-দৌলা।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন একাডেমির অধ্যক্ষ নাসেরুল হাকিম, প্রধান উপদেষ্টা মুনশী কে আজাদ এবং বাংলাদেশিদের সুহৃদ ও স্বরলিপি পরিচালনায় সার্বিক সহায়তা প্রদানকারী নাকাগাওয়া কেইসুকে।

প্রধান অতিথির শুভেচ্ছা বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত বলেন, বিগত ১৭ বছর ধরে স্বরলিপি জাপান প্রবাসী শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের দেশজ সংস্কৃতি শিক্ষায় এবং চর্চায় যে ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে তার গুরুত্ব অপরিসীম। তিনি বলেন, আজকের শিশুরাই আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাই এই সব শিশুর মন-মানসে এবং চিন্তা-চেনতায় দেশজ সংস্কৃতির পরিচিতিকে গেঁথে দেয়া জাতির পরবর্তী প্রজন্মকে গঠন করারই নামান্তর। অনেক প্রতিকূলতা সত্ত্বেও স্বরলিপি সে গুরুদায়িত্বটি পালন করে যাচ্ছে, যা আমাদের সকলের প্রশংসার দাবিদার।

শুভেচ্ছা বক্তব্য শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ‘মোশি মোশি বিয়ে’ নামে একটি নাটিকা মঞ্চস্থ হয়। শিশু-কিশোর এবং বড়দের সমন্বয়ে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি দর্শকরা উপভোগ করে।

উল্লেখ্য, জন্মলগ্ন থেকেই স্বরলিপি নৃত্যকলা, যন্ত্রসঙ্গীত, সঙ্গীত শিক্ষার পাশাপাশি বাংলা ভাষা শিক্ষার ক্ষেত্রে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এই পর্যন্ত শতাধিক শিক্ষার্থী এই সুযোগ গ্রহণে সক্ষম হয়েছেন যাদের বয়স ৫ থেকে ৮০ পর্যন্ত। এসব নিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ বাংলাদেশি বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা স্বরলিপির দীর্ঘদিনের স্বপ্ন। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মিস তনুশ্রী গোলদারের সম্পাদনায় একটি স্মরণিকা বের করা হয়। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন খুরশীদ আল মেহের তন্ময় এবং তাবাসসুম আহমেদ।

রাহমান মনি

rahmanmoni@gmail.com