ইসলামী শক্তিকে নির্মূল করতে যুদ্ধাপরাধী বিচারের ইস্যু টেনে এনেছে সরকার

মুন্সীগঞ্জে মাওলানা নিজামী
জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী গতকাল মুন্সীগঞ্জে এক সমাবেশে বলেছেন, ইসলামী শক্তিকে নির্মূল করার জন্য যুদ্ধাপরাধীর বিচারের ইস্যুটি টেনে এনেছে বর্তমান সরকার। তালিকা করার মতো যুদ্ধাপরাধ করেনি কেউ। শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫ জনের যে তালিকা করেন যুদ্ধাপরাধী হিসেবে, তারা সবাই পাকিস্তানি।
আদালতে চিহ্নিত ব্যক্তি ছাড়া কাউকে যুদ্ধাপরাধী সাব্যস্ত করা যায় না। এটা মানবাধিকার লংঘন। শুক্রবার আলফালাহ মিলনায়তনে মুন্সীগঞ্জ জেলা জামায়াতের উদ্যোগে আয়োজিত এক সম্মেলনে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
জামায়াতের আমীর নিজামী আরও বলেন, তথাকথিত যুদ্ধাপরাধী ইস্যু তৈরি করা হয়েছে ইসলামী আন্দোলনকে স্তব্ধ করতে। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মূল টার্গেট ছিল ইসলামী রাজনীতি নিষিদ্ধ করা।
নিজামী বলেন, ডিজিটাল পদ্ধতিতে চারদলীয় জোটকে নির্বাচনে হারানো হয়েছে। তার নমুনাস্বরূপ ৮০ হাজার ব্যালট বাক্স অতিরিক্ত দেয়া হয়েছে। আমার নির্বাচনী এলাকায়ও অতিরিক্ত ব্যালট বাক্স দেয়া হয়েছে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনকে দিয়ে পিলখানার সেনা অফিসার হত্যার তদন্ত এক সপ্তাহে সম্পন্ন করার চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে গেছে। নির্বাচনে তাদের ব্যবহার করতে না পেরে এ হত্যার ষড়যন্ত্র করা হয়। এ হত্যাকাণ্ড বেঁধে দেয়া ছক মোতাবেক করা হয়েছে।
জেলা জামায়াতের আমীর অধ্যাপক এবিএম ফজলুল করীমের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আহমদুল্লাহ ভুঁইয়া, মাওলানা রফিক উদ্দিন আহমদ, মুন্সীগঞ্জ জেলা সেক্রেটারি মোঃ নুরুল হক মাদবর, জেলা বয়তুলমাল সেক্রেটারি মোঃ আখতার হোসাইন প্রমুখ।