‘পদ্মা সেতুর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ভূমিহীনদের পুনর্বাসন করা হবে’

পদ্মা সেতুর জন্য ভূমি অধিগ্রহণের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ভূমিহীনদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তুলবে সরকার। সেখানে উপশহরের সব সুযোগ-সুবিধা থাকবে বলে জানিয়েছেন সেতু বিভাগের সচিব আব্দুল করিম।

তিনি বলেন, “পদ্মা সেতুর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ভূমিহীন পরিবারের জন্য চার হাজার প্লট, স্কুল, হাসপাতাল, বাজার-ঘাট, মসজিদ-মাদ্রাসা, পুকুর ইত্যাদি গড়ে তোলা হবে। এছাড়া যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, কিন্তু ভূমিহীন নয় তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে তাদের।”

‘পদ্মা বহুমুখী সেত’ু এলাকা পরিদর্শনকালে শুক্রবার সেতু বিভাগের সচিব ও বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল করিম সাংবদিক ও উপস্থিত এলাকাসীকে এ কথা বলেন।

সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত তিনি বিশেষজ্ঞ ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে পদ্মা বহুমুখী সেতু পয়েন্টের মাওয়া-কাওড়াকান্দি, বাংলাবাজার পয়েন্ট, শিবচরের অধিগ্রহণ করা এলাকা, বাখরেরকান্দি পুনর্বাসন এলাকা, পদ্মা সেতুর অ্যাপ্রোচ সড়ক এলাকা পরিদর্শন করেন।

এ সময় সচিব ক্ষতিগ্রস্তদের কয়েকজনের সঙ্গেও কথা বলেন।

সচিব বলেন, “পুনর্বাসন প্রকল্পটি হবে ৪৬ একর জমির উপর। সেখানে আড়াই, পাঁচ ও সাড়ে সাত শতাংশ এ তিন ধরনের প্লট করা হবে।”

তবে কবে নাগাদ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে সে ব্যাপারে তিনি কিছু জানাননি।

পরিদর্শনকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের পরিচালক আব্দুল কাদির, সেতু বিভাগের যুগ্ম সচিব (অর্থ) মো. সানোয়ার, পদ্মা বহুমুখী সেতুর পুনর্বাসন বিশেষজ্ঞ ড. জামান, পরিবেশ বিশেষজ্ঞ ড. নজিবুর রহমান, মাদারীপুর জেলা প্রশাসক শশী কুমার সিংহ, প্রধান প্রকৌশলী মো. রফিকুল ইসলাম, পরিচালক (প্রশাসন) অভিজিৎ চৌধুরী প্রমুখ।