বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা ও আমেরিকার গোপন দলিল

Lenin-135x150নূহ-উল-আলম লেনিন :
আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মাস, স্বাধীনতার মাস মার্চের শেষ দিন ছিল কাল। এবার একটা মুক্ত পরিবেশে আমাদের স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি ক্ষমতায় আসায় সারা দেশে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের একটি চেতনা স্রোত বয়ে যাচ্ছে। জাতি ফিরে যাচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের মূলধারা স্রোতে। একাত্তরে এই এপ্রিল মাসেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রপতি করে সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং তাজউদ্দীন আহমদসহ জাতীয় নেতারা বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার গঠন করেন। ২৫ মার্চের কালরাত্রির গণহত্যার পর বঙ্গবন্ধুর ২৬ মার্চের ঘোষণাকে সর্বোতভাবে গ্রহণ করে অস্থায়ী সরকার মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করে।

সাম্প্রতিক সময়ে স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে একটি কূটতর্ক চলছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমেরিকান ডিফেন্স ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির একটি প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করা প্রয়োজন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ তাৎক্ষণিক ওই প্রতিবেদনটি হোয়াইট হাউসে পাঠানো হয়। এতে তিনটি বিষয়ের ওপর জোর দেয়া হয়। প্রথমটিই হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণাবিষয়ক। প্রতিবেদনের শুরুতেই বলা হয় – `Pakistan was thrust into civil war today when Sheikh Mujibur Rahman proclaimed the east wing of the two part country to be “the sovereign independent peoples Republic of Bangladesh.’ এতে সুস্পষ্টভাবে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা উল্লেখ আছে। এটা সবারই জানা আছে যে, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম বিরোধী শক্তি ছিল আমেরিকা। সেই আমেরিকার গোপন দলিলেই যখন বঙ্গবন্ধুকে স্বাধীনতার ঘোষক হিসেবে উল্লেখ করা হয় তখন স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে আর কোনো বিতর্কের অবকাশ থাকে না। সংশি¬ষ্ট সবাইকে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে অনুধাবন করতে হবে।
গোপন দলিল (ক্লাসিফাইড) হিসেবে হোয়াইট হাউসের মহাফেজ খানায় এটি দীর্ঘদিন সংরক্ষিত ছিল। অনেকদিন পর আমেরিকা এটি প্রকাশ (ডিক্লাসিফাই) করে। এখন গোটা বিশ্বেই এটি ছড়িয়ে পড়েছে। কাজেই এটি সর্বজনস্বীকৃত।
(লেখক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক)।