সাবেক রাষ্ট্রপতি ড.ইয়াজউদ্দিন আহমেদের পালিয়ে যাওয়া ছেলে বাবু

ex-president-iazuddin_family-1 সাবেক রাষ্ট্রপতি ড.ইয়াজউদ্দিন আহমেদের পালিয়ে যাওয়া ছেলে বাবু এবং পুত্রবধু শ্যামার ইমিন্যান্ট প্রপার্টিজ তালাবদ্ধঃ সিএনজি স্টেশনের হিসেব বুঝে নিচ্ছেন নতুন মালিক
বিতর্কিত সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক ড.ইয়াজউদ্দিন আহমেদের পালিয়ে যাওয়া ছেলে ইমতিয়াজ আহমেদ বাবু এবং পূত্রবধু কানিজ ফাতেমা শ্যামার মালিকানাধীন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ইমিন্যান্ট প্রপার্টিজ বর্তমানে তালাবদ্ধ এবং ঢাকা সিএনজি এন্ড ফুয়েল ফিলিং ষ্টেশনের হিসাব-নিকেশ বুঝে নিচ্ছেন নতুন মালিকের প্রতিনিধিরা।

রবিবার দুপুরে সরেজমিনে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় অবস্থিত ইমিন্যান্ট প্রপার্টিজ এর অফিস এবং কুড়িল বিশ্বরোড়ে অবস্থিত সিএনজি ষ্টেশনে গিয়ে এমন চিত্র পাওয়া গেছে।

তবে সাইন্স ল্যাবরেটরীর কাছে ডা.রেফাতউল্লাহ হ্যাপি আর্কেড প্লাজায় অবস্থিত শ্যামার মালিকানাধীন অভিজাত বুটিক হাউসের দোকানটি এখনোও তাদের মালিকানায় আছে বলে জানিয়েছেন কর্মচারী আবুল কালাম আজাদ।

বারিধারাস্থ বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার গেটের কাছে অবস্থিত ইমিন্যান্ট প্রপার্টিজের অফিসে যেয়ে দেখা যায় তা বাইরে থেকে তালাবন্ধ। কলিং বেল খুলে নেয়া হয়েছে। কোন লোকজন সেখানে দেখা যায়নি। একই বিল্ডিং এর নীচ তলায় অবস্থিত স্টুডিও’র এক কর্মচারী ফোকাস বাংলাকে জানায়, ইমিন্যান্ট প্রপার্টিজ এর অফিস শনিবার খোলা ছিলো। বাবুর নিয়োগ করা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দুপুর পর্যন্ত ছিলো। আজকে ফোকাস বাংলার বরাত দিয়ে পত্রিকায় সংবাদ ছাপা হওয়ায় রোববার অফিস খোলা হয়নি।

কুড়িল বিশ্বরোডে এলাকায় রয়েছে বাবুর সিএনজি ষ্টেশন। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, ঢাকা সিএনজি এন্ড ফুয়েল ফিলিং ষ্টেশনে সিএনজি এবং তেলের হিসাব-নিকাশ বুঝে নিচ্ছেন নতুন মালিকের নিয়োগকৃত হিসাব কর্মকর্তা। নতুন মালিকের প্রতিনিধি কিছু বলতে রাজী না হলেও বাবুর নিয়োগকৃত প্রতিনিধি ফোকাস বাংলাকে জানান, নতুন মালিকের নাম মোস্তাফিজ। তিনি ৯মার্চ সিএনজি ষ্টেশনটি কিনে নিয়েছেন। তার হয়ে এক প্রতিনিধি সিএনজি ষ্টেশনের হিসাব-নিকাশ বুঝে নিচ্ছেন।

মোস্তাফিজের প্রতিনিধি ফোকাস বাংলার সাথে কোন কথা না বলে সিএনজি ষ্টেশনের অফিস রুমের মধ্যে ঢুকে পড়েন। শুধু বলেন, আপনারা মোস্তাফিজ সাহেবের সাথে যোগাযোগ করুন।

এদিকে সাইন্স ল্যাবরেটরীর কাছে ডা.রেফাতউল্লাহ হ্যাপী আর্কেড প্ল্যাজার দোতলায় অবস্থিত ইমিন্যান্ট ডিজাইনারস লিমিটেড এ গিয়ে দেখা যায়, সেটি খোলা আছে। দোকানে কর্মরত আবুল কালাম আজাদ ফোকাস বাংলাকে জানান, এই দোকানের মালিক ইমতিয়াজ সাহেব। তিনি আমাকে দায়িত্ব দিয়ে গেছেন দোকান তত্ত্বাবধানের জন্য। তবে দোকানটি বিক্রি হয়নি বলে আবুল কালাম আজাদ ফোকাস বাংলাকে জানিয়েছেন। উত্তরায় অবস্থিত ইমিনেন্ট ডিজাইনারস দোকানের শাখাটি বিক্রি করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া মিরপুরের ইমিনেন্ট ডিজাইনারস এর কারখানাটি বন্ধ করে মালামাল ইতিমধ্যেই সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

এ ছাড়া ঠাকুরগাঁও এ তাদের চা বাগানটি সেখানকার এক চা বাগানের মালিকের কাছে বিক্রি করে যান শ্যামা। বাবু এবং শ্যামার চা বাগানটি ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গি উপজেলার নিটোলডোবা গ্রামে অবস্থিত। এরই মধ্যে সেখানে চা বাগানে উৎপাদন শুরু হয়েছিলো। এমন অবস্থায় সেটি বিক্রি করে দেয়া হয়।

বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে সাবেক বিতর্কিত রাষ্ট্রপতি ইয়াজউদ্দিন আহমেদের স্ত্রী ড.আনোয়ারা বেগম এবং তার ছেলে ইমতিয়াজ আহমেদ বাবু ব্যাপক দূনীতি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছিলো। তখন তাদের নিয়ে পত্র, পত্রিকায় ব্যাপক লেখালেখি হয়েছিলো। ড. আনোয়ারা বেগম রাজধানীর একটি স্কুলের নামে বেশ কিছু জায়গা নিয়েছিলেন। পরে এ নিয়ে লেখালেখি হওয়ায় তিনি জায়গাটি ছেড়ে দেন বলে জানা গেছে। এছাড়া সাবেক রাষ্ট্রপতির ছেলে বাবুর ভালুকাতে বন বিভাগের জমি দখল নিয়ে প্রচুর লেখালেখি হয়েছিলো। সে ব্যাপক দূনীতি করেছে বলে শোনা গিয়েছিলো। তাই ইয়াজউদ্দিন আহমেদের কার্যকাল শেষ হওয়ার আগেই রাতের আধারে তার ছেলে বাবু পালিয়ে আমেরিকায় চলে যান। সর্বশেষ পুত্রবধু শ্যামা সমস্ত সম্পদ বিক্রি করে ব্যাংকক চলে যান বিশস্ত সূত্র জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, কানিজ ফাতেমা শ্যামা ১২ মার্চ বৃহষ্পতিবার রাত ২টায় একটি কফি কালারের ভাড়া করা (ঢাকা মেটো্র-চ -১১-৯৩৩৬) হাইয়েস মাইক্রোবাসে চড়ে বিমানবন্দর যান। ঝামেলা এড়াতে তিনি নিজেদের গাড়ী নেননি। সেখান থেকে বিমানে চড়ে ব্যাংকক যান। ব্যাংকক থেকে পাকিস্তান যাওয়ার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন বাবু এবং শ্যামার ঘনিষ্ঠ একাধিক সুত্র।

ঢাকা, ১৫ মার্চ, রেজাউল করিম লাবলু , ১৫ মার্চ, ফোকাস বাংলা নিউজ