মুন্সীগঞ্জে মাদক ব্যবসা জমজমাট

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জ শহরে বর্তমানে মাদক ব্যবসা ব্যাপক মাত্রায় বেড়েছে। মাদকের আগ্রাসী থাবায় ওলট-পালট হয়ে যাচ্ছে মানুষের সাজানো সংসার। অবনতিও হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা পরিবেশের। বেড়েছে চুরি, ছিনতাই ও চাঁদাবাজি।

মাদকাসক্ত হয়ে শুধু শহরে নয়, গ্রাম-গঞ্জের অনেক যুবকের জীবন ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। মাদকের মরণ থাবার বিস্তার দিন দিন বেড়েইে চলেছে। শহরের অধিকাশং পরিবারের কোনো না কোনো সদস্য মাদকাসক্তে জড়িত। ফেনসিডিল, হেরোইন, গাঁজা আসক্ত হয়ে অকালে ঝড়ে গেছে অনেকের জীবন। রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক কর্মী, আইনজীবী, এমনকি ডাক্তারও মাদকাসক্তে লিপ্ত। মাদকাসক্তির কারণে পারিবারিক ও সামাজিক অশান্তি ও বিপর্যয় বেড়েছে। মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছে প্রভাবশালী একটি সংঘবদ্ধচক্র। মাদকের বিস্তার ও ব্যাপকতা বেড়ে যাওয়ায় চুরি, ছিনতাইয়ের ঘটনাও বেড়ে গেছে। ছোটখাটো মাদক বিক্রেতাদের ধরা হলেও রাঘব বোয়ালরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে বলে সচেতন মহল মনে করছে। জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরের ৩০-৪০টি পয়েন্টে ফেনসিডিল, হেরোইন, মদ, গাঁজা দেদারছে বিক্রি হচ্ছে। ফেনসিডিল কুমিল্লার দাউদকান্দি হয়ে গজারিয়া দিয়ে নদী পথে শহরের ইসলামপুর এলাকায় আর ধলেশ্বরী নদীপথে চরমুক্তারপুর হয়ে মিরকাদিম পৌরসভা ও পঞ্চসার ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় প্রবেশ করে।

হেরোইন আসে ঢাকা থেকে টেংঘরে। সেখান থেকে সাধারণত শহরে সাপ্লাই দেয়া হয়। মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পরিদর্শক বলেন, মাদক বিক্রেতাদের ধরা হলেও নানা তদবির শুরু হয়ে যায়। গ্রেফতার করে কোর্টে পাঠালে কি হবে। কয়েকদিন পর জামিনে বেড়িয়ে আবার মাদক বেচায় লেগে যায় নতুন উৎসাহে। প্রভাবশালী মহলের মদদে মাদকের নির্মূল করা সম্ভব হচ্ছে না।