মুন্সীগঞ্জে নবজাতক বিক্রির পাঁয়তারা হাসপাতালে হট্টগোল

কাজী দীপু, মুন্সীগঞ্জ: মুন্সীগঞ্জে শিকার এক পাগলের নবজাতক শিশুকে নিয়ে জেনারেল হাসপাতালে হট্রগোল দেখা দিয়েছে। জন্ম নেয়ার ৫ ঘণ্টা পর গত শনিবার রাত থেকে নবজাতক শিশুটিকে খুঁজে পাওয়া না যাওয়ায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এদিকে হাসপাতালের স্টাফরা নবজাতক বাচ্চাটিকে অন্যত্র বিক্রি করার জন্য সরিয়ে ফেলেছে বলে অভিযোগ উঠলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তা অস্বীকার করে বলেছেন, নবজাতক শিশুটি ড্রাইভার জসিমের হেফাজতে রয়েছে।

অন্যদিকে নবজাতক শিশুটিকে নেয়ার জন্য নানা তদবির চালাচ্ছে নিঃসন্তান অভিভাবকরা। তবে নবজাতক শিশুটিকে নিতে টানাহেচড়া চললেও গর্ভধারীণী মা পাগলনী কিছুই বুঝতে পারছে না।

গত রোববার হাসপাতালের মহিলা ওয়ার্ডে গিয়ে নবজাতককে খুঁজে না পেয়ে কোথায় আছে তা জানতে চাইলে কর্তব্যরত নার্সরা কিছু বলতে পারেনি। গর্ভবতী পাগলনীকে লালন পালন করা আনোয়ারা বেগম জানান, গত শনিবার রাত ৯টার পর থেকে নবজাতক শিশুটিকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

হাসপাতালের স্টাফরা তাকে সরিয়ে ফেলেছে। ব্যবসায়ী আসাদুল বলেন, তার নিঃসন্তান ভাইয়ের জন্য নবজাতক শিশুটি নেয়ার জন্য গর্ভবতী পাগলনীকে দীর্ঘদিন ধরে দেখাশুনা করে আসছিল। এখন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শিশুটিকে অন্যত্র সরিয়ে ফেলেছে। ভ্যানচালক সবুজ বলেন, এই বাচ্চা ক্রয়ের জন্য ২০ হাজার টাকার খরিদদার রয়েছে ড্রাইভার জসিম তাকে জানিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. এহসানুল করিম জানান, নবজাতক শিশুটি ড্রাইভার জসিমের হেফাজতে রয়েছে।