মুন্সীগঞ্জে পাঁচটিতে আ. লীগ সমর্থিতরা নির্বাচিত

Fri, Jan 23rd, 2009 2:58 pm BdST
মুন্সীগঞ্জ, জানুয়ারি ২৩ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- মুন্সীগঞ্জে ছয়টি উপজেলার মধ্যে পাঁচটির বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা হয়েছে। এ পাঁচ উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা। একটি কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করায় গজারিয়া উপজেলায় ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি। তবে উপজেলার ৩৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ৩৮টির ভোট গণনা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে রিটার্নিং কর্মকর্তার নিয়ন্ত্রণকক্ষ থেকে পাওয়া ফলাফলে সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা আনিছুজ্জামান আনিছ। দোয়াত-কলম প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ৭২ হাজার ৭০৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী একই দলের নেতা ও তার ভাতিজা মো. ফয়সাল বিপ্লব। দেয়াল ঘড়ি প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ২৮ হাজার ১৩১ ভোট।

এ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মনসুর আহম্মেদ কালাম বই প্রতীক নিয়ে ৫১ হাজার ৬২৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী একই দলের আমির হোসেন গাজী (উড়োজাহাজ) পেয়েছেন ৩৮ হাজার ৫৬৭ ভোট।

সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মেহেরুন নেছা (মোমবাতি) ৪৬ হাজার ৬১৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির রুবি আক্তার (হাঁস) পেয়েছেন ৪০ হাজার ৪১৭ ভোট।

সিরাজদিখান উপজেলায় চেয়ারম্যান হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন আহম্মেদ। আনারস প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ৬৭,২১৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির আব্দুস সালাম ব্যাপারী (চেয়ার) পেয়েছেন ৩৭ হাজার ১৮১ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট এ কে এম আবুল কাশেম (চশমা) ৫৭ হাজার ৮৮৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত এম এ বাতেন (ফুটবল) পেয়েছেন ২৪ হাজার ৮৪৫ ভোট।

এ উপজেলায় হেলেনা ইয়াসমিন (মোমবাতি) মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন ৬৩ হাজার ৪৪৯ ভোট পেয়ে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হাঁস প্রতীক নিয়ে নির্দলীয় ফরিদা ইয়াসমিন পেয়েছেন ২১ হাজার ৩৯০ ভোট।

টঙ্গীবাড়ি উপজেলায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ (রিক্সা)। ৩৫ হাজার ১২৭ ভোট পেয়ে তিনি বিজয়ী হয়েছেন। তার কাছে হেরেছেন একই দলের জগলুল হালদার ভুতু (মাছ)। তার প্রাপ্ত ভোট ২২ হাজার ৫১৯।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের নুর মো. শেখ (তালা) ২০ হাজার ৯৯৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির মাহবুবুর রহমান (টিয়াপাখি) পেয়েছেন ২০ হাজার ৬১২ ভোট।

এ উপজেলায় সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত এমেলি পারভীন (আম)। তিনি ৪৮ হাজার ১০৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত হামিদা খাতুন (প্রজাপতি) পেয়েছেন ২২ হাজার ২৬৮ ভোট।

লৌহজং উপজেলার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা ওসমান গণি তালুকদার। চেয়ার প্রতীক নিয়ে তিনি পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৫৫০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফকির আব্দুল হামিদ ছাতা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৩১ হাজার ১১১ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফুটবল প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের জাকির হোসেন ব্যাপারী জয়ী হয়েছেন। তিনি পেয়েছেন ৩১,১৮০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী টিয়াপাখি প্রতীক নিয়ে সেলিম আহম্মেদ মোড়ল পেয়েছেন ১৭ হাজার ৪২৯ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন রানু আক্তার (চাবি)। তিনি পেয়েছেন ৩৭ হাজার ২৬৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লাকী মল্লিক (আম) পেয়েছেন ১০ হাজার ৬০৫ ভোট।

গজারিয়া উপজেলার ৩৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৩৮টি কেন্দ্রের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। ২৫৯১টি ভোটের একটি কেন্দ্র ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের কারণে স্থগিত হয়ে যায়। এ উপজেলার ফলাফলে জাতীয় পার্টির কলিমুল্লাহ (কাপ-পিরিচ) ১০৫১ ভোট বেশি পেয়ে এগিয়ে আছেন। তার প্রাপ্ত ভোট ১৮৯৮৫। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের রেফায়েত উল্লাহ খান তোতা (দোয়াত-কলম) পেয়েছেন ১৭,৯২৪ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে মাহবুব-উল আলম মজনু (ফুটবল) পেয়েছেন ২৩ হাাজর ৬৩৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শাহজাহান খান (উড়োজাহাজ) পেয়েছেন ২১ হাজার ২৫ ভোট।

নির্দলীয় ইমানী কিবরিয়া নুপুর (আম) ২৯ হাজার ৯২ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফারহানা আক্তার (মোমবাতি) পেয়েছেন ১৪ হাজার ৩২ ভোট।

শ্রীনগর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বেলায়েত হোসেন ঢালী আনারস প্রতীকে ৪৫ হাজার ১৫০ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাকির হোসেন (রিক্সা) পেয়েছেন ২৫ হাজার ৭৬৫ ভোট।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের সেলিম আহম্মেদ ভুঁইয়া (উড়োজাহাজ) ৫২ হাজার ৪৪৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সেলিম হোসেন খান (বৈদ্যুতিক বাল্ব) পেয়েছেন ৩৮ হাজার ৪৯ ভোট।

সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সোহেলা পারভীন রানু (হাঁস) পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪৩০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী একই দলের আছিয়া আক্তার রুমু (আম) পেয়েছেন ২৬ হাজার ৯৪৩ ভোট।

বৃহস্পতিবার সারাদেশে একযোগে উপজেলা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ হয়। এটা দেশের তৃতীয় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। গোলযোগের কারণে ৪৮১টি উপজেলার মধ্যে ছয়টিতে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে। এগুলো হল- খাগড়াছড়ির দীঘিনালা, কক্সবাজারের উখিয়া, কুমিল্লার বরুড়া, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ ও সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/প্রতিনিধি/এএল/এমএসবি/এফএফ/জিএনএ/১৪৫৭ ঘ.