সাগরের ঢেউ:সুনামি ভয়ঙ্কর এক জলদানব

জাপানি শব্দ সুনামি৷ ‘সু’ অর্থ সাগর আর ‘নামি’ অর্থ তরঙ্গ বা ঢেউ৷ ভূকম্পনপ্রবণ দেশ জাপানে সমুদ্রে ভূমিকম্পের ফলে সাগরে সৃষ্ট বড় বড় তরঙ্গমালা বা রাশি রাশি ঢেউগুলোকে সুনামি নামে আখ্যায়িত করা হয়৷ সমুদ্রতলের নিচে ভূমিকম্প কেন্দ্র হতে তরঙ্গগুলো অশ্মমন্ডলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে পানিতে প্রবেশ করে পানির মধ্যে তা দ্রম্নতবেগে (প্রতি সেকেন্ডে ১.৫ কিলোমিটার) তরঙ্গাকারে অগ্রসর হয়৷ সমুদ্র তলদেশে ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট বিশাল তরঙ্গই জাপানি ভাষায় সুনামি নামে পরিচিত৷ ভূমিকম্পের দেশ জাপান আর জাপান হলো দ্বীপ দেশ তাই এ দেশের চারদিকে সাগর আর সাগর৷ এ দেশে প্রায়ই ভূমিকম্প হয় তার মধ্যে সমুদ্রের তরঙ্গগুলোর নাম দিয়েছে তারা ‘সুনামি’৷ সুনামি ঘন্টায় ৪০০-৮০০ কিলোমিটার বেগে অগ্রসর হয়৷ সমুদ্র তলদেশে ভূমিকম্প আগ্নেয়গিরির অগস্নু্যত্‍পাত সমুদ্রের তলদেশে ভূপাতের (Land Plate) সীমানায় সংঘর্ষ কিংবা ভূপাতের আকস্মিক ওঠানামার ফলে পিছলিয়ে এক পেস্নট থেকে অন্য পেস্নটের গায়ে গিয়ে আছড়ে পড়ে৷ এতে করে সংঘর্ষে অংশগ্রহণকারী পেস্নটগুলো কেঁপে ওঠে এবং এতে বসবাসকারী মানুষসহ অন্যান্য প্রাণীও ভৌত অবকাঠামো ভেঙ্গেচূড়ে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে৷ পানির মধ্যে সৃষ্টি হয় সুনামি৷

সুনামির ফলে সমুদ্রের পানিতে উঁচু ঢেউ সৃষ্টি হয় উপকূলবতর্ী অঞ্চলে আকস্মিক বন্যার সৃষ্টি ও জান-মালের ব্যাপক ৰয়ৰতি ও তাণ্ডবলীলা সংঘটিত হয়৷ এ থেকে মানুষের ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা হয় তা তারা মনে করে এগুলো ঢেউ নয় যেন জলদানব৷ ২০০৪ সালের ডিসেম্বর মাসে দৰিণ ও দৰিণ-পূর্ব এশিয়ায় সংঘটিত সুনামি ছিল ভয়ঙ্কর জলদানবের প্রতিকৃতি৷ পৃথিবীর প্রায় অর্ধেক ভূমিকম্প বলয় মহাসাগরগুলোর উপকূলীয় অঞ্চলে অবস্থিত৷ আর যে সকল মহাসাগরের উপকূলবতর্ী স্থানের নিচে ভূমিকম্প সৃষ্টি হয় বা কেন্দ্র (Centre) থাকে সে সকল দেশের সুনামি উপকূলবতর্ী অঞ্চল আঘাত হেনে ব্যাপক ৰয়ৰতি ও তাণ্ডবলীলা সংঘটন করে থাকে সবচেয়ে বেশি৷

এস,এম, আলমগীর হোসেন
সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান
ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ, বিক্রমপুর আদর্শ ডিগ্রী কলেজ,
সিরাজদিখান, মুন্সীগঞ্জ-১৫৪০৷