শীতের শাকসবজি উঠছে মুন্সীগঞ্জেঃ দাম চড়া

munshigonj-tongibariমুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ির একটি সবজি ক্ষেত
মুন্সীগঞ্জে শীতের শাকসবজি উঠতে শুরু করেছে। হাটবাজারে সবজির স্তূপ। বিস্তীর্ণ জমিতে সবজির আবাদ। তবে মূল্য বেশ চড়া। কৃষক, পাইকার, খুচরা বিক্রেতা ও ক্রেতাদের থেকে তথ্য সংগ্রহ করে পাওয়া গেছে ভিন্ন ভিন্ন চিত্র। মধ্যস্বত্বভোগীদের দ্বিগুণ লাভ করার বিষয়টিও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। শীতের শুরুতেই মুন্সীগঞ্জের রামপাল, ধলাগাঁও, বজ্রযোগিনী, মহাকালীসহ বিভিন্ন অঞ্চলে শাকসবজি উত্তোলন শুরু হয়েছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, চলতি ২০০৮-২০০৯ সালে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫ হাজার হেক্টর। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ লাখ মেট্রিক টন। পাইকারি বিক্রেতারা জানান, মুন্সীগঞ্জ জেলার শাকসবজি ঢাকার কাওরানবাজার, নারায়ণগঞ্জসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ হয়। গতবারের তুলনায় তরকারির দাম চড়া। মুন্সীগঞ্জ প্রধান বাজারের এক খুচরা বিক্রেতা জানান, ‘স্থানীয় বাজারে প্রয়োজনীয় সব তরকারি পাওয়া যায় না। ঢাকার কাওরানবাজার থেকে ট্রাকে আসা তরকারি আমরা বেশি মূল্যে কিনি।’ বজ্রযোগিনীর ফুলকপি চাষি হযরত আলী জানান, ‘সারের দাম বেশি এবং বৃষ্টি হওয়ায় ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। তাই শাকসবজির দাম কিছুটা বাড়তি।’ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক যতীন্দ্র চন্দ্র মোদক ‘নয়া দিগন্ত’কে বলেন, এবার আলুর বীজ সঙ্কটের কারণে শাকসবজির আবাদ বেশি হয়েছে। তাই শাকসবজির ফলন বেশি।